১লা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ রাত ৪:৫০

সুষমার রাজনৈতিক বার্তা: অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চায় ভারত

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ সোমবার, অক্টোবর ২৩, ২০১৭,
  • 173 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

বাংলাদেশে আগামী সংসদ নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ দেখতে চায় ভারত, এই রাজনৈতিক বার্তাটি দিয়ে গেলেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। রবিবার (২২ অক্টোবর) দু’দিনের সফরে ঢাকা আসেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের পাশাপাশি তিনি জয়েন্ট কনসালটেটিভ কমিশনের চতুর্থ বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন।

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরের সঙ্গে জড়িত এমন একটি সূত্র জানায়, তার রাজনৈতিক বার্তা হচ্ছে- আগামী নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হতে হবে। তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছেন এবং তাদের দু’জনের মধ্যে আধা ঘণ্টা একান্ত আলোচনা হয়।

আরেকটি সূত্র জানায়, এমাসে ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি এবং ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) জাতীয় সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব ঢাকায় সফরে এসে একই বার্তা দিয়ে গেছেন আওয়ামী লীগ সরকারের নেতাদের।

তিনি বলেন, ‘‘নির্বাচনের সময় তত্ত্বাবধায়ক সরকার বা নির্বাচিত সরকার ব্যতীত অন্য সরকারের ক্ষমতা গ্রহণের বিষয়ে সুষমা স্বরাজ জানিয়ে দিয়েছেন যে, ‘জেলা প্রশাসকরা তাদের এখন স্যার বলেন। তাদের (জেলা প্রশাসক) কাছেই তাদের (নেতাদের) নমিনেশন পেপার জমা দিতে হয়। এ ব্যবস্থা গত ৭০ বছর ধরে ভারতে চলে আসছে।’ অন্য কোনও দেশে এ ধরনের ব্যবস্থার ব্যত্যয় সম্পর্কে তাদের কোনও মন্তব্য নেই।’’

ভারতে বাংলাদেশ মিশনে ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ এশিয়া অনুবিভাগে কাজ করেছেন, এমন একজন সাবেক কূটনীতিক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘তারা বেশ কিছুদিন ধরে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের কথা বলছে। এটি ভালো দিক।’

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে নির্বাচন কমিশন কাজ করছে। সামনের দিনগুলোতে এই কার্যক্রম আরও  গতি পাবে। যদি সব কার্যক্রম মসৃণ গতিতে সম্পন্ন হয়, তাহলে কোনও সমস্যা নেই। আর কোনও ঝামেলা যদি তৈরি হয়, তবে কার কী অবস্থান, সেটি আরও পরিষ্কার বোঝা যাবে।’

সাবেক এই কূটনীতিক বলেন, ‘ভারত সবসময় বলে- তারা অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলায় না। কিন্তু তাদের সাবেক প্রেসিডেন্ট প্রণব মুখার্জীর আত্মজীবনীতে বাংলাদেশ বিষয়ে ভারতের আগ্রহের কথা ব্যক্ত করা হয়েছে।’

রোহিঙ্গা ইস্যু

সরকারের একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘রোহিঙ্গা ইস্যুটি সুষমা স্বরাজের সফরের সময়ে জোরালো ভাবে এসেছে। দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে এবং প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের সময় বাংলাদেশ রোহিঙ্গা সমস্যার বিভিন্ন দিক তুলে ধরে।’

তিনি বলেন, ‘ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার বক্তব্যে বলেছেন, রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়াটাই দীর্ঘমেয়াদী সমাধান, যা বাংলাদেশের অবস্থানের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারতের সমর্থন বাংলাদেশের জন্য জরুরি এবং এক্ষেত্রে ঢাকা শুধু মানবিক সহায়তা নয়, রাজনৈতিক সমর্থনও আশা করে, সেটি দিল্লিকে বলা হয়েছে।’

এই কর্মকর্তা বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের জন্য ভারত মানব্কি সহায়তার অংশ হিসেবে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছে বাংলাদেশকে।’

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »