১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ রাত ১:৩০

গ্রেনেড তৈরির সরঞ্জাম ও বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ মঙ্গলবার, অক্টোবর ২৪, ২০১৭,
  • 103 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

যশোর সদর উপজেলার নওয়াপাড়া ইউনিয়নের পাগলাদহ মাঠপাড়ার আস্তানায় সোমবার রাতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অভিযান চালায়।

এ সময় বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক ও অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এর আগেই আটক করা হয় আস্তানার মালিক মোজাফফর হোসেনকে।

রাত পৌনে ৮টার দিকে বাড়িটি ঘিরে রাখার পর অভিযান শুরু হয় এবং রাত ১০টার দিকে তা শেষ হয়।

অভিযান শেষে ব্রিফিংকালে পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান জানান, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে বাড়িটির মালিক মোজাফফর হোসেনকে সোমবার সন্ধ্যায় শহর থেকে আটক করা হয়। এরপর তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী তার বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে ৫০টি গ্রেনেডের বডি, সুইচ ৫০টি, ৩১টি ব্রেকার, ১টি পিস্তল, ৩টি ম্যাগজিন, ৪ রাউন্ড গুলি এবং ৫ লিটার এসিডসহ বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান আরও জানান, মোজাফফর জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে, সে নব্য জেএমবি’র এই অঞ্চলের সংগঠক। তার বাসায় জঙ্গিদের অবাধ যাতায়াত ছিল। মোজাফফরকে আটক করা হয়েছে। তবে তার পরিবারের সদস্য স্ত্রীসহ দুই মেয়েকে পুলিশের নজরদারিতে রাখা হয়েছে। প্রয়োজন হলে তাদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

এর আগে, সোমবার রাত পৌনে ৮টার দিকে এই বাড়িটি ঘিরে ফেলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ৬টি ইউনিট। বগুড়া ডিবি, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের সদস্য, গোয়েন্দা পুলিশ, সোয়াট, যশোর পুলিশ এবং বিস্ফোরক ডিসপোজাল ইউনিটসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ছয়টি টিম বাড়িটি ঘিরে ফেলে।

মোজাফফরের প্রতিবেশি সাঈদুর রহমান জানান, মোজাফফর প্রায় একযুগ আগে এখানে বাড়িটি নির্মাণ করেন। আধাপাকা টিনসেডের বাড়িতে মোজাফফর স্ত্রী ও দুই মেয়ে নিয়ে থাকেন। তিনি যশোর এমএম কলেজ পুরাতন ছাত্রাবাসের মসজিদে ইমামতি করেন। তার স্ত্রী রাজিয়া দর্জির কাজ করেন।

তিনি আরও জানান, মোজাফফরের তিন মেয়ে। এদের মধ্যে হাবিবা’র (১৮) বিয়ে হয়ে গেছে। অন্য দুই মেয়ে ফারজানা (১৪) ও নাঈমাকে (১২) নিয়ে তিনি এই বাড়িতে থাকেন। তার দুই শ্যালক রনজু ও জিল্লুরের এই বাড়িতে যাতায়াত রয়েছে।

উল্লেখ্য, এনিয়ে গত দু’সপ্তাহ’র ব্যবধানে যশোরে দু’টি জঙ্গি আস্তানার সন্ধান মিলল। এর আগে গত ৮ অক্টোবর যশোর শহরের ঘোপ নওয়াপাড়া রোড এলাকার একটি বাড়িতে জঙ্গি আস্তানার সন্ধান মেলে। দিবাগত রাত ২টা থেকে সেখানে অভিযান শুরু হয়। শ্বাসরুদ্ধকর এ অভিযান ‘মেল্টেড আইস’ শেষ হয় পরেরদিন বিকাল ৫টার দিকে। অভিযানে সন্দেহভাজন জঙ্গি হাফিজুর রহমান সাগর ওরফে মশিউর রহমানের স্ত্রী ও হলি আর্টিজান হামলার ‘অন্যতম হোতা’ নিহত মারজানের বোন খোদেজা আক্তার খাদিজা তিন সন্তান নিয়ে আত্মসমর্পণ করেন। সেখান থেকে ৩টি সুইসাইডাল ভেস্ট, কয়েকটি নকশাসহ বিভিন্ন উপকরণ উদ্ধার করা হয়।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »