২২শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ রাত ১১:১৫
ব্রেকিং নিউজঃ
জুলাইয়ের আগে করোনার টিকা রপ্তানি অনিশ্চিত : সেরাম ইনস্টিটিউট পশ্চিমবঙ্গ ষষ্ঠ দফার ভোট মোটামুটি শান্তিপূর্ণ, সফর বাতিল মোদির এত মৃত্যু এত শূন্যতা আগামীকালের ষষ্ঠ দফার ৪৩-টি আসনে কোন দল এগিয়ে !! বাংলাদেশের ভোটার হয়ে কি ভাবে ভারতের বিধান সভায় নির্বাচন করছেন আলো রানী সরকার ? করোনায় মারা গেলেন কবি শঙ্খ ঘোষ বিজেপি মন্ত্রীসভার প্রধান মুখ হতে পারেন যাঁরা !! ঠিকাদারকে টাকা পরিশোধ না করায় থমকে গেছে উজিরপুরে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মান কাজ ।। ধুলো বালীতে ফ্যাকাশে হয়ে আছে ম্যূরাল।। আওয়ামী লীগ নেতাকর্মিদের ক্ষোভ।। ফিরহাদের ভিডিয়ো নিয়ে কমিশনে বিজেপি, তৃণমূল প্রার্থীকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানাল গেরুয়া শিবির পশ্চিমবঙ্গে এক দিনে মোদির ৪ সভা

বইমেলা শুধু বই কেনাবেচার জন্য নয়: প্রধানমন্ত্রী

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ সোমবার, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৮,
  • 114 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে বাংলা একাডেমিতে মাসব্যাপী অমর একুশের গ্রন্থমেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছেন। এ সময় তিনি বলেন, অশুভ পথে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারীরা কখনো সংস্কৃতি ও ভাষা চর্চা করতে জানে না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ হবে অসাম্প্রদায়িক, বাংলাদেশ হবে শান্তিপূর্ণ। যে বাংলাদেশে প্রতিটি মানুষ তার ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করবে। বিভিন্ন ভাষাভাষী যেসব মানুষ আছে, তারাও স্বাধীনভাবে তাদের ভাষা চর্চা করতে পারবে। তিনি বলেন, নিজেদের সংস্কৃতি, ভাষা, শিল্প-সাহিত্যকে যদি আমরা মর্যাদা না দিতে পারি এবং উৎকর্ষ সাধন করতে না পারি, তাহলে জাতি হিসেবে আমরা কখনো আরও উন্নত হতে পারব না।

বাংলাদেশকে এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ যেন এগিয়ে যায়, সেটাই আমরা চাই। আমরা যখন সরকার গঠন করেছি, তখনই আমরা এ ব্যাপারে যথেষ্ট আন্তরিক। আমরা চেষ্টা করেছি আমাদের ঐতিহ্যগুলো ধরে রাখার জন্য।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের এখানে বইমেলা হয়। মনে রাখতে হবে—বইমেলা শুধু বই কেনাবেচার জন্য নয়। বইমেলা সাহিত্যচর্চার ক্ষেত্র প্রসারিত করে, অজানাকে জানার সুযোগ করে দেয়। এ জন্যই আমরা বইমেলাকে প্রাণের মেলা বলি।’

বইমেলা অনেক লেখক-পাঠক তৈরির সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়, এ বিষয়টি উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী লেখক, পাঠক, পরিবেশক—সবাইকে আন্তরিক অভিনন্দন জানান। সেই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বইমেলার সর্বাঙ্গীণ মঙ্গল কামনা করে ভাষার চর্চা বাড়ানোর আহ্বান জানান। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বাংলা একাডেমির প্রশংসাও করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাঙালি জাতি যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছে। তাই আমি চাই প্রতিটি বাঙালি সব সময় মাথা উঁচু করে চলবে, কারও কাছে মাথা নত করবে না। আমাদের সীমিত সম্পদ দিয়ে আমরা দেশকে গড়ে তুলব। ক্ষুধা, দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তুলব। বাঙালি জাতিকে একটি শিক্ষিত জাতি হিসেবে গড়ে তুলব। শিক্ষিত জাতি ছাড়া দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়া সম্ভব নয়।’ তিনি বলেন, ‘এ কারণে আমরা শুধু বিনা পয়সায় বই দিই না, বই উৎসব করি, যেন শিক্ষার্থীরা বই পেয়ে খুশি হয়। বইয়ের প্রতি যেন ছোটবেলা থেকে আকর্ষণ বাড়ে, সে জন্য বই উৎসব করা হয়। আমরা এগিয়ে যাচ্ছি, এগিয়ে যাব। বাঙালি জাতিকে আর কেউ কখনো পরাজিত করতে পারবে না। আমরা আজকে মাথা উঁচু করে চলতে শিখেছি, ইনশা আল্লাহ আমরা মাথা উঁচু করে চলব।’

এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাতই মার্চের ভাষণের বিদেশি ভাষায় অনুবাদের তথ্য দেন। তিনি বলেন, সাতই মার্চের ভাষণ ইতিমধ্যে ১২টি ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছে। জাতির পিতার ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ ইংরেজি, আরবি, উর্দু, হিন্দি, চীন, জাপানি, ফ্রান্স ও রাশিয়ার ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছে। এ ছাড়া জার্মান, পর্তুগিজ ও স্প্যানিশ ভাষায় অনুবাদ করা হচ্ছে। এই অনুবাদের কারণে বাংলাদেশের ইতিহাস বাইরের মানুষ জানতে পারছে। তিনি বলেন, ‘রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাংলা ভাষাকে নিয়ে গেছেন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে। আর বাঙালি জাতি হিসেবে বিশ্বসভায় আমাদের আত্মপরিচয়ের সুযোগ দিয়ে গেছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।’

সুত্র : প্রথম আলো

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »