১লা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ দুপুর ১:১০
ব্রেকিং নিউজঃ
ভাইজানের ব্রিগেড !! বরিশালের বিখ্যাত সুগন্ধা নাসিকা-শক্তিপীঠ (তাঁরাবাড়ি) পরিদর্শনে আসার সম্ভাবনা রয়েছে – ভারতের প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির বাংলা মাসীকে চায় না ২ মে আমার কথা মিলিয়ে নেবেন পিকে: স্বপন মজুমদার মুশতাকের মৃত্যু: স্বচ্ছ তদন্তের দাবি জানাল যুক্তরাষ্ট্র রাজ্য রাজনীতিতে বিজেপি’র পর সিপিএম প্রধান বিরোধী শক্তি হয়ে ওঠার লক্ষ্যে ঘুঁটি সাজাচ্ছে !! আট দফায় বেনজির ভোট পশ্চিম বাংলায়! অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণ করছেন শেখ হাসিনা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিক হত্যা-নির্যাতন কি ‘স্বাভাবিক’ হয়ে উঠল চট্রগ্রামের পটিয়া উপজেলায় প্রায় দেড় শতাধিক সংখ্যালঘু হিন্দু পরিবারকে ভিটে বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করে নতুন বাইপাস সড়ক করার অপচেষ্টা চলছে। মিনি পাকিস্তানের প্রবক্তা ফিরহাদ হাকিমের বাইকের পিছনে সওয়ার কেন মমতা ব্যানার্জী ?

সাতক্ষীরায় হিন্দু পরিবারকে গ্রীলে তালামেরে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা।

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ বুধবার, এপ্রিল ৪, ২০১৮,
  • 78 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

এবার সাতক্ষীরায় প্রকাশ্য দিবালোকে একটি হিন্দু বাড়ির গ্রীলে তালা লাগিয়ে দু’ গৃহবধু ও তাদের দু’সন্তানকে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা। সপরিবারে গ্রাম ছাড়লে আতঙ্কিত অশোক দাস।
আমাদের অনৈক্যর ফলেই আজ আপনি বাড়ি ছাড়া। আপনার জন্মপরিচয়ের কারণেই আজ আপনি ভিটে মাঠি ছাড়া।

প্রকাশ্য দিবালোকে বারান্দার গ্রীলে তালা লাগিয়ে ঘরের মধ্যে ঘুমন্ত দু’ নারী ও তাদের দু’ সন্তানকে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টার ঘটনায় আতঙ্কিত সাতক্ষীরা সদর উপজেলার চুপড়িয়া গ্রামের অশোক দাস সোমবার দুপুরে সপরিবারে গ্রাম ছেড়েছেন। এখন থেকে তিনি তার শ্বশুর বাড়ি আশাশুনির শ্বেতপুর গ্রামে থাকবেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

চুপড়িয়া গ্রামের অশোক দাস জানান, গত বছরের ১৩ অক্টোবর বাড়ির পাশে বাগানে ছাগলের জন্য ঘাস কাটতে গেলে একই গ্রামের দেলোয়ার হোসেনসহ অজ্ঞাতনামা দু’জন তার স্ত্রী অঞ্জনা দাসের মুখের মধ্যে কাপড় ঢুকিয়ে দু’ হাত পিঠ মোড়া দিয়ে বেঁধে দু’ পা মেহগনি গাছের সঙ্গে বেঁধে ধর্ষনের চেষ্টা করে। পরে তার সামাজিক সম্মান নষ্ট করার জন্য মাথার চুল কেটে নেওয়া হয়।

এ ঘটনায় মামলা করলে পুলিশ দেলোয়ারকে গ্রেফতার করায় তাকে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দেওয়া হয়। এ ঘটনায় তার চার ভাই নিরাপত্তাহীনতার কারণে গ্রাম ছেড়ে দেওয়ার উদ্যোগ নেন। একপর্যায়ে পুলিশ, আগরদাঁড়ি ইউপি চেয়ারম্যান, মানবাধিকার কর্মী, সাংবাদিক ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নেতাদের আশ্বাসে তারা সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন।

এরপরও মামলা তুলে নেওয়ার জন্য নানাভাবে হুমকি ধামকি অব্যহত থাকে। এরই একপর্যায়ে তার বড় ভাইসন্তোষ, সুফল স্বপরিবারে গত নভেম্বর মাসে যশোরের শার্শা উপজেলার গোগাপ গ্রামের একটি ইটভাটায় কাজ করতে চলে আসেন। তারা গত সোমবার পর্যন্ত বাড়িতে আসেননি। একইভাবে তার সেঝ ভাই সুমন দাস এক সপ্তাহ আগে স্বপরিবারে ছয়ঘরিয়ায় শ্বশুর বাড়িতে চলে যায়। গত সাড়ে পাঁচ মাসেও পুলিশ তার দায়েরকৃত মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করেনি। ফলে ওই এলাকার একটি মৌলবাদী গোষ্ঠী বেপরোয়া হয়ে ওঠে। প্রান্ত

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »