১লা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ রাত ৯:৩২
ব্রেকিং নিউজঃ
মূর্খদের পিছনে সময় নষ্ট করা আহাম্মকী ছাড়া আর কিছুই নয়। প্রার্থী তালিকা প্রকাশে দেরী কেন !! ভাইজানের ব্রিগেড !! বরিশালের বিখ্যাত সুগন্ধা নাসিকা-শক্তিপীঠ (তাঁরাবাড়ি) পরিদর্শনে আসার সম্ভাবনা রয়েছে – ভারতের প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির বাংলা মাসীকে চায় না ২ মে আমার কথা মিলিয়ে নেবেন পিকে: স্বপন মজুমদার মুশতাকের মৃত্যু: স্বচ্ছ তদন্তের দাবি জানাল যুক্তরাষ্ট্র রাজ্য রাজনীতিতে বিজেপি’র পর সিপিএম প্রধান বিরোধী শক্তি হয়ে ওঠার লক্ষ্যে ঘুঁটি সাজাচ্ছে !! আট দফায় বেনজির ভোট পশ্চিম বাংলায়! অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণ করছেন শেখ হাসিনা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিক হত্যা-নির্যাতন কি ‘স্বাভাবিক’ হয়ে উঠল

স্বরূপকাঠিতে বিক্রয় নিষিদ্ধ বই বিক্রি মাদ্রাসা সুপারসহ গ্রেফতার চার

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ সোমবার, এপ্রিল ১৬, ২০১৮,
  • 98 সংবাদটি পঠিক হয়েছে


স্বরূপকাঠির ব্যাসকাঠি নেছারিয়া দাখিল মাদ্রাসার ২০১৬-১৭ ও ১৮ সালে সরকারিভাবে প্রাপ্ত অনুমান ১০মন নতুন ও পুরাতন বিক্রয় নিষিদ্ধ বই বিক্রির সময় অত্রমাদ্রাসার সহ-সুপার এবং ক্রেতা ও ভ্রান চালককে গ্রেফতার করে পাটিকেলবাড়ী পুলিশ ফাড়ির ইনচার্য আশ্রাফ আলী। পুলিশ ফাড়ি সূত্রে জানা যায়, গত ১৫ এপ্রিল সন্ধ্যায় তাদের গ্রেফতার করে মাদ্রাসা সুপার মোঃ রফিকুল ইসলামকে মোবাইল ফোনে রাত অনুমান ১০টায় ফাড়িতে ডেকে আনা হয়। এসময় পাটিকেলবাড়ি পুিিলশ ফাড়ির ইনচার্য আশ্রাফ আলী আসামীদের সাথে দেন দরবার ও আটককৃত বই থেকে ২০১৮ সালের বইগুলো সরিয়ে ফেলছেন এমন সংবাদে রাত ১০.৩০ টায় অত্র ফাড়িতে গিয়ে দেখা যায় বই ক্রেতা, ভ্যান চালক ও এসআই আশ্রাফ আলী নিজেই রাস্তায় বই নামিয়ে ২০১৮ সালের বই গুলো চিহ্নিত করছেন এবং এ সংবাদকর্মীকে ছবি তুলতে বাধা দেন এমন কি কোন তথ্য নিতেও বাধা দেন। এক পর্যায় ক্যামেরা বন্দি হয় তাদের এসব কর্মকান্ড। এসময় বই ক্রেতা জানায় মাদ্রাসার মাঠে দাড়িয়ে বিকি-কিনি শেষে বইগুলো ভ্যানে তোলার সময় পুলিশ তাদের আটক করে এখানে(পাটিকেলবাড়ি পুলিশ ফাড়িতে) নিয়ে আসে। এসময় ফাড়ির ইনচার্জ এসআই আশ্রাফ আলী বই ক্রেতার সাথে কথা বলতে বাধা দিয়ে বলেন, যা জানার থানায় গিয়ে জেনে নেবেন, এখানে কোন তথ্য দেয়া যাবেনা এবং ছবি তোলা যাবেনা। অতঃপর উক্ত মাদ্রাসার সুপার ও সহ-সুপারকে হাতকড়া পড়ায় অত্র ফাড়ির কনেস্টবল মোঃ কামরুল এবং তাদের ছবি তোলায় ক্যামেরা থেকে ছবি ডিলেট করার জন্য এ সংবাদকর্মীকে একাধীক বার চাপ সৃষ্টি করেন এস আই আশ্রাফ আলী কিন্তু তার কথায় কর্ণপাত না করায় তিনি সহ-সুপারের হাত থেকে হাতকড়া খুলে সুপারকে হাতকড়া পরিয়ে ক্রেতা ও অন্যান্য সহায়তাকারীদের ছেড়ে দিয়ে রাত ১১.৩০টায় তাদের ও আটককৃত বই নেছারাবাদ থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। এব্যাপারে ১৬ এপ্রিল দুপুর ২.৫টায় নেছারাবাদ থানার ওসি কেএম তারিকুল ইসলাম বলেন, সরকার কর্তৃক প্রদত্ত বিক্রয় নিষিদ্ধ বই বিক্রি করার অপরাধে ৪০৯,৪১৮ ও দূর্নিতী দামন আইনে ব্যাসকাঠি নেছারিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মোঃ রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরে প্রস্তুতি চলছে। এব্যাপারে কাউখালী ও নেছারাবাদ থানা সার্কেল এএসপি শাহ্ নেওয়াজ বলেন, সরকারি বিক্রয় নিষিদ্ধ বই যার দায়িত্বে থাকবে তিনি যদি সে কাজে জড়িত থাকেন তাহলে তার দ্বায়ভার তাকেই নিতে হবে যে কারণে শুধূ সুপারকেই মামলাভুক্ত করা হয়েছে। কিন্তু বই ক্রেতাকে মামলা ভুক্ত করা হয়নি।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »