২২শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ রাত ২:৫২
ব্রেকিং নিউজঃ
বনগাঁ বিধায়ক স্বপন মজুমদারের করা হুশিয়ারী পেট্রাপোল স্থল বন্দর বন্ধ করে দেওয়া হবে। কুমিল্লায় মুর্তির পায়ে রেখে কোরান অবমাননাকারী গ্রেফতার তিন ! সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান, ইন্দো-বাংলা ফ্রেন্ডশিপ এসোসিয়েশনের। সোমবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ: রাত ২:০৩ AVBP বাড়ি Breaking News বিভৎস নোয়াখালী, ‌ভো‌রের আলো ফুট‌তেই পুকু‌রে ভে‌সে উঠ‌লো আ‌রও এক ইসক‌নের সাধুর মৃত‌দেহ পীরগঞ্জে হামলায় পুড়ল ২০ বাড়িঘর কুমিল্লার একটি পূজামণ্ডপে কোরআন পাওয়া এবং সেটিকে কেন্দ্র করে সহিংসতা সমগ্র বাংলাদেশে। কুমিল্লায় ফেসবুক লাইভে উত্তেজনা ছড়ানো ফয়েজ আটক ভারতে যেন এমন কিছু না হয়, যার জন্য বাংলাদেশের হিন্দুদের ভুগতে হয়! কুমিল্লা নিয়ে হুঁশিয়ারি হাসিনার চীনকে মোকাবিলায় লাদাখে ভারতের কামান কলকাতার মণ্ডপে বুর্জ খলিফা এবং তালেবান মাতার প্রতীকে মমতা

নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতাসংখ্যালঘুসহ ফরিদপুরে শতাধিক বাড়িতে হামলা

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ বুধবার, জানুয়ারি ২, ২০১৯,
  • 101 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

ফরিদপুর-৪ আসন এলাকায় সোমবার হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত সংখ্যালঘু পরিবারের একটি বাড়ি- সমকাল

নির্বাচন শেষ হতে না হতেই গতকাল সোমবার ফরিদপুরে বিজয়ী সংসদ সদস্যের সমর্থকদের হামলায় সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের বেশ কয়েকটি বাড়িসহ শতাধিক ঘরবাড়ি ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে এ পর্যন্ত আটজনকে আটক করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ফরিদপুর-৪ নির্বাচনী এলাকার ভাঙ্গা ও সদরপুর উপজেলার কয়েকটি এলাকায় নির্বাচনের দিন রোববার মধ্যরাত থেকে গতকাল সকাল ১১টা পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে দেশি ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে সদলবলে হামলা চালায়  নবনির্বাচিত এমপি মজিবর রহমান চৌধুরী নিক্সনের সমর্থকরা। হামলার শিকার পরিবারগুলোর বেশিরভাগই পরাজিত প্রার্থী আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্যাহর সমর্থক নেতাকর্মী।

ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, স্বতন্ত্র প্রার্থী নিক্সন চৌধুরীর বিজয়ের খবর পাওয়ার পর থেকেই ভাঙ্গার বিভিন্ন স্থানে এবং সদরপুরের চরমানাইয়ে সাংসদ সমর্থকদের ব্যাপক তাণ্ডব শুরু হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেখানে পুলিশের পাশাপাশি গতকাল দুপুরে বিজিবি ও সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়। পুলিশ এ তাণ্ডবের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে একজন ইউপি চেয়ারম্যানসহ আটজনকে আটক করেছে। তবে সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্তদের পক্ষ থেকে থানায় কোনো মামলা করা হয়নি।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ভাঙ্গার হামিরদি ইউনিয়নের মাধবপুর গ্রামে গত রোববার রাতে স্বতন্ত্র সাংসদের সমর্থকরা হামলা চালিয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থকদের ৫-৬টি বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করে। একই সময় উপজেলার ঘারুয়া ইউনিয়নের বিবিরকান্দা গ্রামে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খসরু মুন্সীর বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়। হামলা হয় এক ইউপি সদস্যের বাড়িতেও।

ভাঙ্গার আজিমনগর ইউনিয়নের ব্রাহ্মণপাড়া গ্রামে ৪-৫টি বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। রাতে ভাঙ্গা পৌরসভার কৈডুবি ও সদরদী মহল্লায় আওয়ামী লীগ সমর্থক আতিকুর শেখ, দেলোয়ার শেখ, আবু শরিফ, আসমত শেখ ও মনিরুলের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর করা হয়।

গতকাল ভোর ৬টার দিকে ভাঙ্গার চুমুরদি ইউনিয়নের পূর্ব সদরদী গ্রামে ইয়াদ আলী ফকির ও গফুর শেখের বাড়িতে হামলা এবং সকাল ৭টার দিকে ভাঙ্গা পৌরসভার ছিলাধরচরের রশিদ মিয়ার বাড়ি ও গ্যারেজ ভাংচুর করা হয়। সকালে ভাংচুরের ঘটনা ঘটে কাউলিবেড়া ইউনিয়নের মাইঝাইল গ্রামে। কাউলিবেড়া ইউনিয়নের খাটরা ও কালামৃধা ইউনিয়নের আটরা ভার্ষা গ্রমের বিভিন্ন বাড়িতেও হামলা চালায় তারা।

গতকাল সকাল ১১টার দিকে ভাংচুর করা হয় ভাঙ্গা পৌরসভার কোর্টপাড় এলাকার বাসিন্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক অপুর বাড়িতে। এ ছাড়া সদরপুর উপজেলার চরমানাই ইউনিয়নের চরমানাই গ্রামে সকালে কয়েকটি বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত এ ইউনিয়নে দু’পক্ষের টানটান উত্তেজনার মধ্যে পুলিশ অভিযান চালিয়ে সাংসদ সমর্থক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল হোসেন ও আনিসুর রহমানকে গ্রেফতার করে।

কাজী জাফরউল্যাহর সমর্থক ভাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সোবাহান মুন্সী বলেন, এ এলাকার মানুষের কষ্টের কোনো সীমা নেই। নৌকায় ভোট দিয়ে তাদের মার খেতে হচ্ছে। নৌকায় ভোট দেওয়াই যেন তাদের অপরাধ। যেন তাদের দেখার কেউ নেই।

এসব হামলার অভিযোগ প্রসঙ্গে স্বতন্ত্র সাংসদ নিক্সন সমর্থক ভাঙ্গা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাহাদাত হোসেন বলেন, এসব ঘটনার সঙ্গে স্বতন্ত্র সাংসদ বা তার সমর্থকরা জড়িত নয়। প্রতিপক্ষরা সাংসদের ভাবমূর্তি বিনষ্ট করার জন্য আমাদের ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছে।

ফরিদপুরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জামাল পাশা সমকালকে বলেন, নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতার অভিযোগে এ পর্যন্ত ভাঙ্গার আজিমনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোতালেব হোসেন এবং চরমানাই ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলামসহ ভাঙ্গা ও সদরপুর থেকে আটজনকে আটক করা হয়েছে।

গতকাল দুপুরে ভাঙ্গা ও সদরপুর পরিদর্শন করেন ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক উম্মে সালমা তানজিয়া। তিনি বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ভাঙ্গায় সেনাবাহিনী নামানো হয়েছে। ফরিদপুর-৪ নির্বাচনী এলাকায় টহল দিচ্ছেন বিজিবি ও র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »