২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ সন্ধ্যা ৬:১৬
ব্রেকিং নিউজঃ
বরিশালের বিখ্যাত সুগন্ধা নাসিকা-শক্তিপীঠ (তাঁরাবাড়ি) পরিদর্শনে আসার সম্ভাবনা রয়েছে – ভারতের প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির বাংলা মাসীকে চায় না ২ মে আমার কথা মিলিয়ে নেবেন পিকে: স্বপন মজুমদার মুশতাকের মৃত্যু: স্বচ্ছ তদন্তের দাবি জানাল যুক্তরাষ্ট্র রাজ্য রাজনীতিতে বিজেপি’র পর সিপিএম প্রধান বিরোধী শক্তি হয়ে ওঠার লক্ষ্যে ঘুঁটি সাজাচ্ছে !! আট দফায় বেনজির ভোট পশ্চিম বাংলায়! অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণ করছেন শেখ হাসিনা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিক হত্যা-নির্যাতন কি ‘স্বাভাবিক’ হয়ে উঠল চট্রগ্রামের পটিয়া উপজেলায় প্রায় দেড় শতাধিক সংখ্যালঘু হিন্দু পরিবারকে ভিটে বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করে নতুন বাইপাস সড়ক করার অপচেষ্টা চলছে। মিনি পাকিস্তানের প্রবক্তা ফিরহাদ হাকিমের বাইকের পিছনে সওয়ার কেন মমতা ব্যানার্জী ? সংক্ষিপ্ত বিশ্ব সংবাদ : ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১

মারা গেল শেষ প্রাণীটিও, আসামের দ্বীপ থেকে চিরতরে বিলুপ্ত গোল্ডেন লেঙ্গুর

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ রবিবার, মার্চ ১, ২০২০,
  • 57 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

দ্বীপে একা একা বসবাস করত সে। তার সঙ্গীরা আগেই চলে গিয়েছিল সব। গাছপালা, চারিদিকে থইথই করছে জল— তার মধ্যেই ধীরে ধীরে একা হয়ে যায়। সেও চলে গেল অবশেষে। সম্প্রতি আসামের উমানন্দ দ্বীপে মারা গেল একটি গোল্ডেন লেঙ্গুর। সে মারা যাওয়ার সঙ্গেই, ওখান থেকে সম্পূর্ণভাবে মুছে গেল এই প্রজাতির বাঁদরের অস্তিত্ব।

ঘন সোনালি লোমে ঢাকা শরীর, তার ফাঁক দিয়েই বেরিয়ে আছে কালো মুখ। গোল্ডেন লেঙ্গুরের এই চেহারার সঙ্গে পরিচিত অনেকেই। কিন্তু এখন এরাই বিপদে পড়েছে। আসামের ব্রহ্মপুত্র নদীর মাঝখানের এই উমানন্দ দ্বীপে এই প্রজাতির লেঙ্গুরের দেখা মিলত। মূলত আসামের পশ্চিমাঞ্চল, ভূটানের কিছু জায়গাতেই ছিল এদের প্রধান বসবাস। কিন্তু এখন তারা অনেক কমে আসছে। উমানন্দ দ্বীপও ব্যাতিক্রম নয়। ধীরে ধীরে এখান থেকে লেঙ্গুরের সংখ্যা কমতে থাকে। শেষে এর সংখ্যা এসে দাঁড়ায় একটিতে। সম্প্রতি সেই লেঙ্গুরটিও মারা যায়। সেই সঙ্গে উমানন্দ দ্বীপে গোল্ডেন লেঙ্গুর পুরোপুরি মুছে যায়।

মৃত্যুর কারণ এখনও জানা যায়নি। পোস্টমর্টেমও করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন ডাক্তাররা। তবে সেখানকার পরিবেশবিদরা মনে করছেন, সঙ্গী সাথীরা আগেই মারা যাওয়ায় একা হয়ে যায় লেঙ্গুরটি। সেখান থেকেই মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে সে। তবে আসল কারণ কী, সেটা এখনই বলা যাচ্ছে না।

একে খাবার নেই, থাকার জায়গাও কমে আসছে; তার ওপর রয়েছে চোরাশিকার। এদের সোনালি ঘন লোমের লোভে মানুষ শিকার করেছে। তারই ফল দেখা যাচ্ছে এখন। আজ শুধু ভারত নয়, গোটা পৃথিবীতে এদের অস্তিত্ব গভীর সংকটের মুখে। বেশ কিছু বছর ধরে এদের সংখ্যা কমেছে মারাত্মকভাবে। আজ হাতে গোনা কিছু গোল্ডেন লেঙ্গুরই বেঁচে আছে। সেখান থেকেও একজন মারা গেল। এই সবটাই হয়েছে মানুষের কাজের জন্য। এইভাবেই হয়তো এরা একা হতে হতে পৃথিবী থেকে মুছে যাবে। আরও বহু প্রজাতি এদের পথ নেবে।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »