২৫শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ সন্ধ্যা ৭:৩৫
ব্রেকিং নিউজঃ
শিশু নির্যাতন অবসানে আমরা কি আন্তরিক বিজেপিতে যাচ্ছেন অভিনেত্রী বিজয়শান্তি! করোনায় ভাসমান যৌনকর্মীদের ‘আশ্রয়স্থল’ ছিলেন রিনা ডিম খেয়ে কমবে ওজন, খেয়াল রাখুন এই ৫টি বিষয় পোশাক নিয়ে সমালোচনার কবলে নুসরাত ফারিয়া হিন্দু হয়েও ইসলাম ধর্ম পালন করে অভিনেত্রী,শাহনাজ পারভীন দুলারী ভারতে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘নিভার’ পাকিস্তানের মাটি খুঁড়ে খোঁজ মিলল ১,৩০০ বছর আগে নির্মিত হিন্দু মন্দিরের নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে বরিশালের নবগ্রহ মন্দিরে সার্বজনীন শ্রী শ্রী জগদ্ধাত্রী পূজা অনুষ্ঠিত ফরিদপুর ডুমাইনে গুচ্ছগ্রাম শ্মশান এলাকায় আশ্রায়ন প্রকল্প প্রস্তাব করার প্রতিবাদে মানববন্ধন

ধোনির ইতিহাস রাঙানো ছক্কায় হারানো বলটা খুঁজে দিচ্ছেন গাভাস্কার

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০,
  • 35 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

এই তো কালই এক ছক্কা মেরে বলটাকে স্টেডিয়াম ছাড়া করেছেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। আইপিএলে রাজস্থান রয়্যালসের বিপক্ষে ম্যাচে সেই ছক্কাটায় অবশ্য দেখনদারি ছাড়া তেমন লাভ হয়নি ধোনির চেন্নাই সুপার কিংসের। ম্যাচটা শেষ পর্যন্ত চেন্নাই হেরে গেছে ১৬ রানে।

কিন্তু ধোনির এমনই এক ছক্কাই তো রাঙিয়ে দিয়েছিল ভারতীয় ক্রিকেটের ইতিহাস। মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে ২০১১ বিশ্বকাপের ফাইনালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ভারতের জয় নিশ্চিত করা সেই ছক্কার কথা ভারতীয়রা হয়তো কোনো দিনই ভুলতে পারবেন না। ক্রিকেটপ্রেমীরাও কি ভুলতে পারবেন? কিন্তু যে বলটাকে পিটিয়ে গ্যালারিতে ফেলে ভারতকে দ্বিতীয় বিশ্বকাপ এনে দিয়েছিলেন ধোনি, সেই বলটা কোথায়? যে দর্শকের হাতে পড়েছে, তিনিই বা কে? কোথায়ই বা আছেন ওই দর্শক, বলটা কি তাঁর কাছে আছে?
ধোনির সেই ছক্কার মুহূর্ত।
ধোনির সেই ছক্কার মুহূর্ত।ফাইল ছবি

হঠাৎ করে এ নিয়ে খোঁজ পড়ে গেছে মুম্বাই ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনে (এমসিএ)। আর সে বলের খোঁজে এমসিএ-কে সাহায্য করতে এগিয়ে এসেছেন মুম্বাইয়েরই কিংবদন্তি ক্রিকেটার সুনীল গাভাস্কার। বলটা খোঁজার পাশাপাশি বলটা যে আসনে পড়েছে, সে আসনটিকে ধোনির নামে নামাঙ্কিত করতে চায় এমসিএ।
বিজ্ঞাপন

২০১১ সালের ২ এপ্রিলের সেই বিকেলে মাহেলা জয়াবর্ধনের দারুণ সেঞ্চুরিতে ভারতকে ২৭৫ রানের লক্ষ্য দেয় শ্রীলঙ্কা। জবাবে ৩১ রানেই দুই ওপেনার বীরেন্দর শেবাগ ও শচীন টেন্ডুলকারকে হারিয়ে ধুঁকছিল ভারত। দলের ১১৪ রানের সময় তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে প্যাভিলিয়নে ফেরেন বিরাট কোহলিও। ততক্ষণে ক্রিজের এক প্রান্তে দাঁড়িয়ে গেছেন গৌতম গম্ভীর। দারুণ খেলতে থাকা গম্ভীরের সঙ্গে এসে জুটি গড়েন ধোনি।

গম্ভীর ৯৭ রানে যখন আউট হন, ভারতের তখন আর দরকার ৫২ বলে ৫৩ রান। যুবরাজ সিংকে নিয়ে সেই কাজটা সহজেই সেরে ফেলেন ধোনি। তাঁর অপরাজিত ৯১ রানের ইনিংসের শেষ ছক্কাটায় লেখা হয় ইতিহাস। গোটা ভারত মেতে ওঠে উচ্ছ্বাসে। দল বিশ্বকাপ জিতেছে ২৮ বছর পর, তা-ও নিজেদের মাটিতে—ভারতজুড়ে উচ্ছ্বাস তো হবেই। আর এই উৎসবের মধ্যে ছোট্ট একটা ক্রিকেট বলের খোঁজ কে রাখে! ধোনির ছক্কায় গ্যালারিতে গিয়ে পড়া সেই বলটার খোঁজও আর মেলেনি। এত দিন পর তাহলে সেটির খোঁজ পড়ল কেন? ধোনির অবসর ঘোষণার কারণে?

গত মাসে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের কথা জানিয়ে দেন ভারতীয়দের প্রিয় ‘মাহি।’এরপরই এমসিএ-র অ্যাপেক্স কাউন্সিলের সদস্য অজিঙ্কা নায়েক সংস্থাটির কার্যনির্বাহী পরিষদের কাছে এক চিঠি লিখে প্রস্তাবটা দেন। প্রস্তাবটা এই, ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামের যে আসনে ধোনির ছক্কা উড়ে গিয়ে পড়েছে, সেটিকে ধোনির নামে নামাঙ্কিত করার। ‘ভারতীয় ক্রিকেটে তাঁর অসীম অবদানের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও সম্মান জানাতে এমসিএ প্যাভিলিয়নের ওই আসনটা স্থায়ীভাবে তাঁর নামে উৎসর্গ করতে পারে, যে আসনে তাঁর বিশ্বকাপ জেতানো বিখ্যাত ছক্কাটা পড়েছে’—এমসিএ’র উদ্দেশে নায়েকের চিঠিতে লেখা।
বিজ্ঞাপন

আসনটাকে কীভাবে বিশেষ করে রাখা যায়, সে পরিকল্পনাও চিঠিতে লিখেছেন নায়েক, ‘ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামের সঙ্গে ধোনির সম্পর্কটা উদ্‌যাপন করতে আমরা অনন্য উপায়ে আসনটাকে রঙ করতে পারি আমরা, সাজাতে পারি। ওই মুহূর্তটাকে সম্মান জানাতে আসনটাতে বিশেষ কিছু শব্দ ব্যবহার করে একটা নামফলকও রাখতে পারি।’

আসন কোনটি, সেটি এরই মধ্যে নির্ধারণ করা গেছে। ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামের এমসিএ প্যাভিলিয়নের এল ব্লকের ২১০ নম্বর আসন। আসন যেহেতু খুঁজে বের করাই গেছে, সেই আসনে সেদিন কে বসেছিলেন, সেটিও বের করা তো আর কষ্টসাধ্য হওয়ার কথা নয়! আর এখানেই আসছে বলের সঙ্গে গাভাস্কারের সম্পর্ক। সেদিন আসনটিতে যে দর্শক বসেছিলেন, তিনি গাভাস্কারের বন্ধুর পরিচিত একজন। এমসিএ-র এক সদস্যকে উদ্ধৃত করে টাইমস অব ইন্ডিয়া লিখেছে, ‘গাভাস্কার অজিঙ্কাকে জানিয়েছেন যে, সেদিন ওই আসনে বসা দর্শককে তাঁর এক বন্ধু চেনেন। বলটা ওই দর্শকের কাছেই আছে।’

ওই দর্শক বলটাকে নিজের শোকেসে সাজিয়ে রেখেছেন। সেদিনের ম্যাচ টিকিটটাও লেমিনেট করিয়ে রেখেছেন। বিশেষ মুহূর্তের সাক্ষী বল আর টিকিট বলে কথা! এখন এমসিএ সেই বলটা নিজেদের করে নিতে গাভাস্কারের শরণ নেবে, যাতে গাভাস্কারের বন্ধুর সাহায্য নিয়ে ওই দর্শকের কাছে পৌঁছানো যায়। খবরটা এমসিএ পেয়েছে দারুণ এক সময়ে, কদিন আগেই মহারাষ্ট্র রাজ্যের সরকার এমসিএ-কে অনুরোধ করেছে যেন করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর থেকে বন্ধ ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়াম দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হয়।
বিজ্ঞাপন

ভারতে কোনো খেলোয়াড়ের নামে পুরো স্টেডিয়াম বা স্টেডিয়ামের কোনো একটা গ্যালারির নামকরণ এত দিন দেখা গেছে, গ্যালারির কোনো একটা আসনের নাম কোনো খেলোয়াড়ের নামে করলে সেটি অভিনবই হবে। তবে বিশ্ব ক্রিকেটে এমন ঘটনা আরও আছে। ১৯৯৩ সালে মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে প্রথম শ্রেণির সাইমন ও’ডনেলের ১২২ মিটার লম্বা ছক্কাকে সম্মান জানাতে ওই ছক্কাটি যে আসনে পড়েছে, সে আসনকে হলুদ রঙে রাঙানো হয়েছে। ২০১৮ সালে মেলবোর্ন ইতিহাদ স্টেডিয়ামের তৃতীয় সারিতে একটা আসন লাল রং করেছিল বিগ ব্যাশের দল মেলবোর্ন রেনেগেডস, ওই ম্যাচেই রেনেগেডসের হয়ে শেষবার মাঠে নামা ব্র্যাড হজের ৯৬ মিটার লম্বা ছক্কা ওই আসনে পড়েছিল।

নিউজিল্যান্ড সেই সম্মান জানিয়েছে গ্র্যান্ট এলিয়টকে। অকল্যান্ডে ২০১৫ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে এলিয়টের ছক্কাতেই নিশ্চিত হয়, প্রথম বিশ্বকাপ ফাইনালে খেলতে যাচ্ছে নিউজিল্যান্ড। সেই ছক্কার স্মরণে ছক্কাটি যে আসনে পড়েছে সেখানে একটা নামফলক বসানো হয়েছে। ২০১১ সালে শ্রীলঙ্কার নুয়ান কুলাসেকারাকে ছক্কা মেরে ইতিহাস গড়া ধোনির নামটা যোগ হচ্ছে এই তালিকায়।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »