২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ সন্ধ্যা ৬:১৩
ব্রেকিং নিউজঃ
বিমানবন্দরে সাফজয়ী কৃষ্ণা রানীর আড়াই লাখ টাকা চুরি ভারতের নতুন হাইকমিশনার প্রণয় কুমার ভার্মা ঢাকায় কপাল পুড়বে ১৪০ এমপির প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে সঙ্গী হলেন যারা কিশোরগঞ্জ ও নরসিংদীতে হিন্দুদের বাড়ি-ঘর ও দোকানপাটে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ। রাঙ্গামাটিতে সুভাষ দাস ও মনি দাস দম্পতিকে গাছের সাথে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় অমানবিক নির্যাতন ড্রাইভিং লাইসেন্সের লিখিত পরীক্ষার স্ট্যান্ডার্ড ৮৫টি প্রশ্ন ব্যাংক ও উত্তর নিজে শিখুন এবং অন্যকে শেখার জন্য উৎসাহিত করুন। আবার ভুমিদস্যুর হাতে আহত সংখ্যালঘু হিন্দু… বাংলাদেশেও অর্থপাচারের অভিযোগ পার্থের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের সম্পর্ক উন্নয়নে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

১০ লাখ টাকায় নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন!

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ শনিবার, ডিসেম্বর ৮, ২০১৮,
  • 191 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস চক্রের সাত সদস্য গ্রেফতার করেছে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের সিরিয়াস ক্রাইম ইউনিট।

শুক্রবার ও শনিবার রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরী, মিরপুর ও কলাবাগান এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত এ চক্রটি চাকরি প্রার্থীকে প্রশ্নের উত্তর জানিয়ে দিতে প্রত্যেক পরীক্ষার্থীর সঙ্গে ৫-১০ লাখ টাকায় চুক্তি করতো বলে জানিয়েছেন ডিএমপি উপকমিশনার (ডিসি) মাসুদুর রহমান।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান।

মাসুদুর রহমান বলেন, মন্ত্রণালয়সহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ নিয়োগ পরীক্ষায় ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করে চুক্তিবদ্ধ প্রার্থীকে উত্তর জানিয়ে এ চক্রটি প্রতি প্রার্থীর সঙ্গে ৫-১০ লাখ টাকায় চুক্তি করতো।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- সোহেল রানা, রবিউল আউয়াল, মাহমুদুল, আনসারুল ইসলাম, শ্রী দেবাশীষ, রাজিউর রহমান ও রেজাউল করিম।

তাদের মধ্যে তিনজন পরীক্ষার্থী আর অন্য চারজন চক্রটি পরিচালনাকারী।

মাসুদুর রহমান বলেন, গ্রেফতারকৃতদের পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এ চক্রের কয়েকজন সদস্য ডিভাইসসহ পরীক্ষার্থী হিসেবে পরীক্ষায় অংশ নেন।

তিনি বলেন, প্রশ্নপত্র হাতে পাওয়া মাত্র ইলেকট্রনিক ডিভাইসের মাধ্যমে প্রশ্নপত্রের ছবি তুলে তা কেন্দ্রের বাইরে অবস্থানরত চক্রের অন্য সদস্যদের কাছে পাঠিয়ে দেয়া হতো।

বাইরে অবস্থানরত সদস্যরা দ্রুত প্রশ্নপত্র সমাধান করে চুক্তি অনুযায়ী পরীক্ষার্থীদের কাছে সরবরাহ করতো বলে জানান তিনি।

মাসুদুর রহমান আরও বলেন, এই চক্রের একজন সোহেল রানা এর আগেও আমাদের হাতে গ্রেফতার হয়েছিলেন। তার ওপর আমাদের গোয়েন্দা নজরদারি ছিল।

তিনি বলেন, গতকাল মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের নিয়োগ পরীক্ষায় এই চক্রটি আবার সক্রিয় হয়। ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করে উত্তরপত্র সরবরাহ করার চেষ্টা করে। তখন আমরা তাদের গ্রেফতার করি।

‘তাদের ব্যবহৃত ডিভাইসগুলো এতই সূক্ষ্ম যে কারও প্রতি সন্দেহ না হওয়া পর্যন্ত বোঝার ক্ষমতা নেই।’

তিনি জানান, গ্রেফতারের সময় তাদের কাছে থেকে, আটটি প্রশ্নপত্র প্রেরণের ডিভাইস, ২৯টি ব্যাটারি, তিনটি পেনড্রাইভ, নয়টি ব্লুটুথ ডিভাইস, নয়টি বিভিন্ন অপারেটরের সিম কার্ড, আটটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »