১লা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ সকাল ৯:৫৬
ব্রেকিং নিউজঃ
বিমানবন্দরে সাফজয়ী কৃষ্ণা রানীর আড়াই লাখ টাকা চুরি ভারতের নতুন হাইকমিশনার প্রণয় কুমার ভার্মা ঢাকায় কপাল পুড়বে ১৪০ এমপির প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে সঙ্গী হলেন যারা কিশোরগঞ্জ ও নরসিংদীতে হিন্দুদের বাড়ি-ঘর ও দোকানপাটে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ। রাঙ্গামাটিতে সুভাষ দাস ও মনি দাস দম্পতিকে গাছের সাথে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় অমানবিক নির্যাতন ড্রাইভিং লাইসেন্সের লিখিত পরীক্ষার স্ট্যান্ডার্ড ৮৫টি প্রশ্ন ব্যাংক ও উত্তর নিজে শিখুন এবং অন্যকে শেখার জন্য উৎসাহিত করুন। আবার ভুমিদস্যুর হাতে আহত সংখ্যালঘু হিন্দু… বাংলাদেশেও অর্থপাচারের অভিযোগ পার্থের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের সম্পর্ক উন্নয়নে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

আমনের বাম্পার ফলন, চরম শ্রমিক সংকট

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ বুধবার, জানুয়ারি ৯, ২০১৯,
  • 271 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

ঝালকাঠির রাজাপুরে এবছর আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ফসল কাটা ও মারাই করতে কৃষকরা একন ব্যস্তসময় পার করছেন। তবে এলাকার বেকার যুবকরা আটো, অটো রিক্সা ও মোটরসাইকেল চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করায় ধান কাটা শ্রমিক সংকট দেয়া দিয়েছে চরম ভাবে। আবাহাওয়া অনুকুলে থাকায় ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে বলছে কৃষক। তাইতো তাদের মুখে হাসি ফুটেছে। আমন ধান চাষ করে এবার লাভবান হবে কৃষকরা। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানাগেছে,‘ ঝালকাঠি জেলা এবছর ৪৯ হাজার ৯৪১ হেক্টর জমিতে আমন ধানের চাষ করা হয়েছে। বীজ রোপন থেকে শুরু করে ধান কর্তন পর্যন্ত কোন রকম বৈরি আবাহাওয়া না থাকায় ফলন ভাল হয়েছে। বিগত বছরে অসময়ের বৃষ্টিসহ অন্যান্য প্রকৃতিক বিপর্যয় থাকায় আমনের ব্যপক ক্ষতি হয়। এতে কয়েক হাজার হেক্টর জমির আধাপাকা ধান পঁেচ গিয়ে ফলনের বিপর্জয় হয়। কৃষক বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পরেছিল। এবছর চিত্র ভিন্ন। জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্ত জানিয়েছে, এবছর আমন ধানের উৎপাদন লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৯৬ হাজার ১৬৯ মে.টন। এখন পর্যন্ত ৬০ থেকে ৭০ ভাগ ফসল কাটা হয়েছে। এবছর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল প্রায় এক লক্ষ মে.টন চাল। ফলনও হয়েছে বিগত ১০ বছরের মধ্যে রেকর্ড পরিমান। এই অভুতপূর্ব ফলন দেখে কৃষকরা আশায় বুক বেধেছে। তবে কৃষকদের দাবি ভাল ফলনের পাশাপাশি তাদের উৎপাদিত ফসলের যেন ন্যায্য মূলে নিশ্চিত করে সরকার। তাহলে কৃষককূল আগ্রহ নিয়ে চাষাবাদ করবে, অর্থনৈতিক ভাবে মুক্ত হবে তারা। আমন ধানের মন ( ৪০) কেজি ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। নলছিটি উপজেলার প্রতাপ গ্রামের কৃষক আনোয়ার হোসেন বলেন,‘ এবছর আমন ধানের ফলন ভাল হয়েছে। তবে ধানের ন্যায্য মূল্য যেন আমরা পাই সে ব্যাপারে সরকারের দৃষ্টি আর্কশন করছি। একই এলাকার কৃষক আব্দুল বারেক খান বলেন,‘ বর্তমানে শ্রমিকের পারিশ্রমিক অনেক বেশি। ফলস রোপন থেকে শুরু কর্তন পর্যন্ত অনেক টাকা খরচ হয়। ধানের দাম বেশি হলে আমরা বাঁচতে পারি আর কম হলে আমাদের বাঁচার কোন পথ থাকে না। বর্তমানে ধান কাটা শ্রমিক সংকট চরম আকার ধারন করেছে। ঝালকাঠি কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. ফজলুল হক বলেন,‘ কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে এখানকার কৃষকদের বিভিন্ন রকমের পরামর্শ আমরা দিয়েছে। পাশাপাশি আবাহাওয়া ভাল থাকায় এবছর ফলন ভাল হয়েছে।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »