৬ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ সকাল ৭:১৪
ব্রেকিং নিউজঃ
বিমানবন্দরে সাফজয়ী কৃষ্ণা রানীর আড়াই লাখ টাকা চুরি ভারতের নতুন হাইকমিশনার প্রণয় কুমার ভার্মা ঢাকায় কপাল পুড়বে ১৪০ এমপির প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে সঙ্গী হলেন যারা কিশোরগঞ্জ ও নরসিংদীতে হিন্দুদের বাড়ি-ঘর ও দোকানপাটে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ। রাঙ্গামাটিতে সুভাষ দাস ও মনি দাস দম্পতিকে গাছের সাথে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় অমানবিক নির্যাতন ড্রাইভিং লাইসেন্সের লিখিত পরীক্ষার স্ট্যান্ডার্ড ৮৫টি প্রশ্ন ব্যাংক ও উত্তর নিজে শিখুন এবং অন্যকে শেখার জন্য উৎসাহিত করুন। আবার ভুমিদস্যুর হাতে আহত সংখ্যালঘু হিন্দু… বাংলাদেশেও অর্থপাচারের অভিযোগ পার্থের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের সম্পর্ক উন্নয়নে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

১৯ জানুয়ারি ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ সোমবার, জানুয়ারি ১৪, ২০১৯,
  • 217 সংবাদটি পঠিক হয়েছে
সারাদেশে একজোগে পালিত হবে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন। ওদিন ৬ মাস থেকে ৫৯ মাস বয়সী সব শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। আজ সোমবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে আসন্ন জাতীয় এ প্লাস ক্যাম্পেইন (২য় রাউন্ড) এর কেন্দ্রীয় অ্যাডভোকেসি সভায় এ তথ্য জানানো হয়। ডিএসসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (ডা.) শেখ সালাহ্উদ্দিনের সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় সালাহ্‌উদ্দিন বলেন, সাধারণত বছরে দুইবার জুন ও ডিসেম্বর মাসে ভিটামিন-এ ক্যাম্পেইন পরিচালনা করা হয়। তবে নির্বাচনের কারণে গত বছরের ২য় রাউন্ডের ক্যাম্পেইন এ বছর জানুয়ারি মাসে পরিচালনা করা হবে। ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন ও জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠানের যৌথ উদ্যোগে অনুষ্ঠিত এই ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইনে এ বছর ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন থেকে ৬-১১ মাস বয়সী প্রায় ৪৭ হাজার শিশু ও ১২-৫৯ মাস বয়সী সোয়া তিন লাখ শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।
ডিএসসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেন, ১৯ তারিখ সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ডিএসসিসির ১ হাজার ৪৮৭টি স্থায়ী ও অস্থায়ী কেন্দ্রে শিশুদের ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। এই ক্যাম্পেইনে কাজ করবেন প্রায় তিন হাজার স্বেচ্ছাসেবক।
অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠানের উপ-পরিচালক ড. মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, ‘ভিটামিন এ ক্যাম্পেইনের লক্ষ্য শুধু শিশুদের ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো নয় বরং শিশুর দেহে ভিটামিন এ’র প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে অভিভাবকদের সচেতন করা।’
তিনি আরও বলেন, ‘ভিটামিন এ ঘাটতি পূরণ করার মাধ্যমে শিশু মৃত্যুর হার ২৩ শতাংশ পর্যন্ত কমানো সম্ভব।’
প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (ডা.) শেখ সালাহ্উদ্দিন বলেন, ভিটামিন এ ক্যাম্পেইনে গত বারের অর্জন ৮৭ শতাংশ। গ্রাম অঞ্চলের মানুষের কাছে এই ক্যম্পেইন সহজে পৌঁছালেও শোহরে এটি পুরোপুরি সফল করা যাচ্ছে না উল্লেখ করে তিনি জানান, শহর অঞ্চলে বাবা মায়েদের ভিটামিন এ ক্যাপসুল গ্রহণ সম্পর্কে উদাসীনতা রয়েছে। এই বিষয়ে ছড়ানো গুজবও ভিটামিন এ ক্যাপসুল গ্রহণে বিরূপ ভূমিকা রাখে।
তিনি বলেন, মারাত্মক অসুস্থ ছাড়া ৫ থেকে ৫৯ মাস বয়সী যে কোনো শিশু ভিটামিন এ ক্যাপসুল খেতে পারবে। তিনি শিশুদের ভরপেটে ক্যাপসুল খাওয়ানোর পরামর্শ দেন এবং বলেন, ‘যদি কোনো শিশু মারাত্মক অসুস্থ বোধ করে তবে সিটি কর্পোরেশোনের কন্ট্রোলরুম ৯৫৫৬০১৪ নাম্বারে ফোন দিয়ে জানাতে হবে।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »