২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ সকাল ৮:৫১
ব্রেকিং নিউজঃ
বিমানবন্দরে সাফজয়ী কৃষ্ণা রানীর আড়াই লাখ টাকা চুরি ভারতের নতুন হাইকমিশনার প্রণয় কুমার ভার্মা ঢাকায় কপাল পুড়বে ১৪০ এমপির প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে সঙ্গী হলেন যারা কিশোরগঞ্জ ও নরসিংদীতে হিন্দুদের বাড়ি-ঘর ও দোকানপাটে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ। রাঙ্গামাটিতে সুভাষ দাস ও মনি দাস দম্পতিকে গাছের সাথে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় অমানবিক নির্যাতন ড্রাইভিং লাইসেন্সের লিখিত পরীক্ষার স্ট্যান্ডার্ড ৮৫টি প্রশ্ন ব্যাংক ও উত্তর নিজে শিখুন এবং অন্যকে শেখার জন্য উৎসাহিত করুন। আবার ভুমিদস্যুর হাতে আহত সংখ্যালঘু হিন্দু… বাংলাদেশেও অর্থপাচারের অভিযোগ পার্থের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের সম্পর্ক উন্নয়নে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

বৈষম্যহীন দক্ষিণ এশিয়া গড়ে তোলার আহ্বানে সংবাদ সম্মেলন

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ বুধবার, জানুয়ারি ২৩, ২০১৯,
  • 218 সংবাদটি পঠিক হয়েছে
বৈষম্যহীন দক্ষিণ এশিয়া গড়ে তোলার আহ্বান

ঢাকা: পৃথিবীতে অতি ধনী তৈরি হচ্ছে সর্বোচ্চ হারে। সেসব ধনীদের নিয়ে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম ২২-২৫ জানুয়ারি সুইজারল্যান্ডের ডাভস শহরে সম্মেলনে মিলিত হচ্ছে। সম্মেলনে চীন, ভিয়েতনামসহ পশ্চিমা বিশ্বের রাষ্ট্রনায়ক ও বহুজাতিক নেতারা উপস্থিত থাকবেন। সেখানে যদি কিছু বিষয়ে তারা ঐক্যমত হন তবে আগামী বিশ্বে দক্ষিণ এশিয়া আরো অসহায় হয়ে পড়বে।

মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ও বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক এম এম আকাশ। 

‘বৈষম্যহীন দক্ষিণ এশিয়া গড়ে তুলতে সকলে ঐক্যবদ্ধ হই’ শীর্ষক এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘ ও সাউথ এশিয়া অ্যালায়েন্স ফর প্রভার্টি ইরাডিকেশন।

অধ্যাপক এম এম আকাশ বলেন, বর্তমান সময় ডিজিটাল। অধিক ধনীরাও প্রযুক্তির উৎকর্ষে বড়। তারা যদি একত্রিত হয়, তবে তখন আমরা আর সত্য-মিথ্যা বুঝতে পারবো না। সে ক্ষেত্রে বৈষম্য কমাতে না পারলে দুঃখ আরও বাড়বে। শুধু সম্পদ নয়, আমাদের চিন্তা আর পছন্দও বেদখল হয়ে যাবে। তাই ক্রমবর্ধমান বৈষম্য ও অসমতা দূর করতে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে শিক্ষা, স্বাস্থ্য আর সম্পদের ক্ষেত্রে বৈষম্য দূর করা প্রয়োজন।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সাবেক সভাপতি ডা. রশীদ-ই-মাহবুব বলেন, আমাদের দেশে বৈষম্য আছে। চাকরির ক্ষেত্রেই যদি ধরি, ফরমাল সেক্টরে আন্দোলন হয়, সরকার বেতন বাড়ায়। কিন্তু নন-ফরমাল সেক্টরে এটা হয় না। আমাদের দেশের সাধারণ মানুষের আয়ের প্রায় ৬৫ ভাগ আয় চিকিৎসা খাতে ব্যয় হয়ে যায়। এতে ধনীদের সমস্যা না হলেও মধ্যবিত্তদের সমস্যা প্রকটভাবে দেখা দেয়। আমরা সচেতন করছি, তবে নিজেদের সমস্যা নিজেদের তুলে ধরতে হবে। নয়তো বৈষম্য বাড়বে, আর বৈষম্য বাড়লে সামাজিক অস্থিরতা সৃষ্টি হবে। সচেতনতা ও আন্দোলনের মাধ্যমে আমাদের বৈষম্য দূর করতে হবে। নইলে ধনীরা আরও ধনী হবে আর দরিদ্ররা আরো বেশি দরিদ্র হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক তানজিম উদ্দিন খান বলেন, রাষ্ট্রের শাসন ব্যবস্থা সমাজকেন্দ্রিক না হয়ে বাজারকেন্দ্রিক হলে বৈষম্য সৃষ্টি হয়। আমাদের রাষ্ট্রের চরিত্র পরিবর্তিত হয়ে গেছে। এটা সমাজকেন্দ্রিক না হয়ে বাজারকেন্দ্রিক হয়ে গেছে। আর এটাই আমাদের মধ্যে বেশি বৈষম্য তৈরি করে।

বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘের নির্বাহী পরিচালক ও নারীনেত্রী রোকেয়া কবিরের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন শ্রমিক নেতা আবুল হোসেন, জননেতা পংকজ ভট্টাচার্য শিশু সংগঠক ও কেন্দ্রীয় খেলাঘর সাধারণ সম্পাদক লেলিন চৌধুরী প্রমুখ।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »