৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ সকাল ১০:৩৩

স্বরূপকাঠীর মূর্তিমান আতঙ্ক মুহিদুল ইসলাম মুহিদ ।

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ শুক্রবার, জানুয়ারি ২৫, ২০১৯,
  • 398 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

কে এই মুহিদুল ইসলাম মুহিদ । এবং তার ভাই ,তৌহিদ  ? বাবাঃ ডা. নূরুল ইসলাম( জামাত সংশ্লিস্ট) মামাঃ ডা. মুস্তাফিজুর রহমান( জামাত) ভাইঃতৌহিদ( জে. পি) সাইকেল বোনঃ শম্পা, বি, এম কলেজর শিবির এর মনোনিত ছাত্রী বিষয়ক সম্পাদিকা( নির্বাচিত)তার নানা হাজী আব্দুর রহমান ছিলেন সরূপকাঠী থানা পিচ কমিটির কমিটির চেয়ারম্যান । দাদা হাজী সুন্দর আলী ছিলেন  মুসলিম লীগ সভাপতি । তার বোন সম্পা বরিশাল বিএম কলেজ ছাত্র শিবিরে সম্পাদিকা  শিবিরে হয়ে দুবার সে নির্বাচনও করেছে তার স্বামী কেন্দ্রীয় ছাত্র শিবিরের উচ্চুপর্যায়ের নেতা  তাদের পরিবার  সবসময়ই  জামায়েত মুসলিমলীগের সাথে জরিত

কিন্ত  মুহিদ মুক্তি যোদ্ধা কমন্ডার সরূপকাঠী থানা আওয়ামী লীগর সাবেক সভাপতি মৃত নূরমহম্মদের শ্যালিকাকে বিবাহ করে তার ঐ পরিবারের হাত ধরে নব্য আওয়ামী লীগ হয়ে এলাকায় একবার ইউপি চেয়াম্যান একবার উপজেলা চেয়ারম্যান হয় তার সময় তার এবং তার ভায়ের অত্যাচারে এলাকার শত শত হিন্দু দেশ ত্যাগে বাধ্য হয় । আজ আবার মাননীয় মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের হাত পা ধরে  আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে এলাকায় আবার সন্ত্রাসের রাজত্ব কয়েম করছে এই মুহিদ বাহনী । বিগত দিনে এমপি আওয়ালে সাথে বিরোধ থাকায়  শান্ত ছিল বলে দাবি তুলেন এলাকার বিশেষ্ঠজনেরা  ।

মুহিদ প্রথমে উপজেলা ক্রিয়া সংসদ নির্বাচনে পরাজয় বরন করে ।উপজেলা নির্বাচনে ধারদেনা হয় নির্বাচিত হয়ে অবৈধ অর্থ উপার্জনে ব্যাস্ত থাকে তিন কোটি টাকায় গড়ে তোলেন আলিসান অট্রালিকা তার সাথে দেখাকরা কঠিন হয়ে পরে রাতে থাকতেন  ঝালকাঠীর একটি হোটেলে জুয়া মদ আর ললনায় মত্ত এলাকায় তার একটি জঙ্গী বাহানী আছে তার নেতৃত্ত্ব দেন তার ভাই তৌহিদ তাকে  গুন্ডা তৌহিদ নামে চিনে এলাকায় । ইউনিয়ান চেয়ারম্যান থাকা অবস্তায় পূর্ব জলাবাড়ী আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক্ষ এবং স্বরূপকাঠী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি,বাবু শৈলেন হালদারকে থাপ্পর মারে এবং অন্য অন্য শিক্ষকদেরও মারধর করে ১১ঘন্টা স্কুল কক্ষে আটকিয়ে রাখে । ঐ একই স্কুলের আরএক প্রধান শিক্ষক কৃষ্ণ সমদ্দার (কৃষ্ণ সাধু)কে স্কুল চলাকালিন মাঠে বসে থাপ্পর মারেন মারধর করেন শিক্ষক প্রতুল বাবুকে । এলাকায় মূখে মূখে আছে বহু হিন্দু নাড়ীদের নিয়ে ঘটনা লোকলজ্জার ভয়ে কেউ কথা বলেনি বলেনি ভয়ে ।তার কয়একজন হিন্দু কেডার আছে তাদের দিয়ে হিন্দুদের সম্পত্তি দখল করান তার একজন পরিমল বৈদ্য ,কলিঙ্গ  এদের সবাই সর্বহারা নেতা হিসাবেই চিনে তার বাহানীর সবাই সর্বহারার সদস্য ছিল বলে জানান এলাকার শান্তি প্রিয় মানুষ ।

পূর্বেএকবার মুহিদ জলাবাড়ী মেলায় লক্ষন দাস সার্কাসে দলবল নিয়ে হামলা করে সার্কাসের লোকেরা বেধম মারদিয়ে পুলিশে দিয়েছিল কদিন হাসপাতালেও ছিল ।

কিছু ঘটনাঃ বরিশালের কয়একটি পত্রিকা থেকে নেওয়া

সরূপকাঠীর বিভিন্ন এলাকায় দফায় দফা হামলা হচ্ছে হিন্দুদের উপর ৮নং আটগরকুরিয়ানা ইউনিয়নের চেয়ারম্যন বাবু শেখর সিকদাররের উপর হামলা তর মাথায় আঘাত মারধর তার ভাই শংকর সিকদরকে হাতুর দিয়ে পিটিয়েআহত করে সে এখন হাসপাতালে মুহিদ বাহানী কুরিয়ানা কলেজে নির্বচনী আলোচনা সভায় ১৫ /২০টি মটর সাকেলে লোকজন  সহ মুহিদ এসে হামলা চালায় এতে গুরুতর অহত হয় ৪নং ওয়ার্ড সদস্য বাবুল সরকার তকে তাতক্ষনিক হাসপাতালে পাঠানো হয় ঐ হামলায় আরও কয়েকজন আহত হয় ।

২০১৬ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মুহিদের বাড়ীর সামনে সিটি স্কুলের কেন্দ্র পরির্দশনে চেয়ারম্যান প্রার্থী আশিস বড়াল গেলে দুইভাই মিলে আশিসকে কুপিয়ে মৃত্যু মনেকরে খালেফেলে দিয়েছিল ২০১২ সালে এমপি আওয়ালের সাথে স্বরূপকাঠী ইফতার পার্টিতে যোগদিলে মালুরবাচ্ছা তুই এহানে বলে পিটিয়ে মাথা ফাটিয়েছিল ২০০৯ সালেও উপজেলার সামনে বসে পিটিয়ে আহত করে হাসপাতালে পাঠিয়েছিল ।এমন ঘটনা আরো অনেক আছে । কোনও মানুষ ওদের ভয়ে কথা বলতে পারছেনা আতঙ্কিত এলাকাবাসী কখনই সে সঠিক ভোটে জেতেনি ভোট সেন্টার দখল জাল ভোটে জিতেছে এলাকার মানুষের কথা ।

৫নং জলাবাড়ীর চেয়ারম্যান বাবু আসিস বাড়াল বলেন তার এলাকায় ৭-১২-১৮ সন্ধ্যায় পূর্ব জলাবাড়ী মন্দিরে একটি সভায় তৈহিদ বাহানী ২০ /২৫ মটর সাকেল  সহ লোকজন নিয়ে  হামলা করে এতে কয় একজন আহত হয় । মুহিদের ভাই  তৈহিদ  হুশিয়ারী করে বলে মুহিতই সব তার নির্দেশ ছারা গাছের একটি পাতাও নরবে না তাকে প্রধান অতিথী না করে কোনও সভা বা ধর্মিয় অনুষ্ঠান করা যাবে না  ।

 ২৮/১২/১৮বিকেল ৪টায় সরূপকাঠীর ৫নং জলাবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিন্দু ঐক্য পরিষদের সরূপকাঠী উপজেলা সভাপতি বাবু আসিস কুমার বড়ালের উপর  মুহিদের নির্দেশে কতিপয় সন্ত্রাসী হামলা করে হত্যার চেস্টায় রামদা হাতুরি দিয়ে মাথায় আঘাত করে এলাকাবাসীর প্রতিরোধে দূস্কৃতিকারীরা পালিয়ে যায় । এই নিয়ে মূহিদ তিনবার আশিস কে হত্যার চেস্টা করে ।

দৈহারী ইউনিয়ানের চেয়ারম্যান প্রগতি মন্ডলকে হুমকি দিচ্ছে এবং এলাকার সকল সংখ্যালঘুদের সবধানে চলতে না হলে দেশ থেকে চলে যেতে হবে ।

বর্ষিয়ান এক স্কুল শিক্ষক বলেন সে নাকি আবার উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচন করবে এমন একজন রাজাকার পরিবারের সন্তান সম্প্রদায়িক লোক হিন্দু অদ্যাসিত এলাকার চেয়ারম্যান হলে কি হবে কথা বলার সময় তার মূখে আতঙ্ক বিরাজ করছিল বারবার অনুরোধ করছিল তার নাম না প্রকাশের ।

এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিরা এমন খবরে আতঙ্কিত । আটঘড়  কুড়িয়ানার চেয়ারম্যান বলেন এমন হলে হিন্দুদের জন্য বড় বিপদ ৫ নং জলাবাড়ীর চেয়ারম্যান আশিস বড়াল বলেন এমন হলে দেশ ছেরে চলে যাব ,নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক একজন কলেজ অধ্যাপক বলেন মুহিদ আমার বন্ধু তবে ওরা বড় ভয়ানকতবে মুহিদ খুবই চতুর কয় একজন বাটপার চতুর হিন্দুকে সাথে রাখে বিভিন্ন সময় ব্যাবহার করার জন্য । এমন ধরনের মন্তব্য বিভিন্ন জনের । এমন খবরে এলাকায় সংখ্যালঘুদের মনে আতঙ্ক বিরাজ করছে ।….

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »