১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ রাত ১১:৪১
ব্রেকিং নিউজঃ
ড্রাইভিং লাইসেন্সের লিখিত পরীক্ষার স্ট্যান্ডার্ড ৮৫টি প্রশ্ন ব্যাংক ও উত্তর নিজে শিখুন এবং অন্যকে শেখার জন্য উৎসাহিত করুন। আবার ভুমিদস্যুর হাতে আহত সংখ্যালঘু হিন্দু… বাংলাদেশেও অর্থপাচারের অভিযোগ পার্থের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের সম্পর্ক উন্নয়নে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা ঢাকায় ভারতের নতুন হাইকমিশনার প্রণয় কুমার ভার্মা ট্রেনের ধাক্কায় নিহত ১১ দুর্ঘটনাস্থলে সিগন্যাল, লাইনম্যান ছিল না আদমশুমারি: জনসংখ্যা সাড়ে ১৬ কোটি, পুরুষের চেয়ে নারী বেশী, কমেছে হিন্দু জনগোষ্ঠী সিলেটের হবিগন্জে হিন্দুদের উপর হামলা একজন নির্যাতিতের আকুতি। রাজশাহী বাঘার কৃতিসন্তান রথীন্দ্রনাথ দত্ত যুগ্ম-সচিব হওয়ায় সর্ব মহলের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন

বাংলাদেশের দুটি জিনিস গর্ব করার মতো : তসলিমা

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ শনিবার, এপ্রিল ২০, ২০১৯,
  • 240 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

গতকাল রবিবার এপার বাংলা বরণ করেছে নতুন বাংলা বছরকে; আজ বরণ করে নিচ্ছে ওপার বাংলা। বাঙালির চিরন্তন এই উৎসবের অন্যতম আকর্ষণ মঙ্গল শোভাযাত্রা। বাংলাদেশের  এই মঙ্গল শোভাযাত্রা ইতোমধ্যেই ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতি পেয়েছে। তবে কিছু সংখ্যক ব্যক্তি রয়েছে যারা বাঙালির প্রাণের এই উৎসব নিয়ে সাধারণ মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছে। বাংলাদেশের বৈশাখ উদযাপন নিয়ে কোটি কোটি বাঙালির মতো গর্ব করেন বিখ্যাত নারীবাদী লেখিকা তসলিমা নাসরিন।

নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে তসলিমা লিখেছেন, ‘বাংলাদেশের দুটো জিনিস নিয়ে গর্ব করতেই হয়। এক, একুশে ফেব্রুয়ারী উদযাপন। দুই, পয়লা বৈশাখ উৎযাপন। পয়লা বৈশাখের সকাল থেকেই যে নাচ, গান, মেলা আর মঙ্গল শোভাযাত্রা হয়, তার কোনো তুলনা হয় না। আরবের গোলামেরা বা ধর্ম ব্যবসায়ীরা এসবের খুব বিরুদ্ধে। একুশে ফেব্রুয়ারীতে শহিদ মিনারে ফুল দেওয়া যাবে না, ওটা নাকি হিন্দুয়ানি কালচার। কোনো অনুষ্ঠানে প্রদীপ জ্বালানো চলবে না, ওটাও নাকি হিন্দুয়ানি।পয়লা বৈশাখে মঙ্গল শোভাযাত্রা করা চলবে না, ওটাও হিন্দুয়ানি কালচার।’

‘হিন্দুয়ানি কালচারকে ভীষণ ভয় ওদের। ওরা আরবের বহু ঈশ্বরবাদী পেগানদের কালচারটাকে পছন্দ করে, ওদের পয়গম্বর যেমন পছন্দ করেছিল, পছন্দ করে সব আচার অনুষ্ঠান আত্মসাৎ করেছিল। কেন বাপু, চলতে ফিরতে, উঠতে বসতে, খাওয়ায় দাওয়ায়, পোশাকে আশাকে, কথায় বার্তায় যা কিছুই তোমার, সবই তো হিন্দুয়ানি কালচার, কারণ তোমার বাপের বাপের বাপের বাপরা , বা তোমার মায়ের মায়ের মায়ের মারা তো হিন্দু ছিল, বাংলাদেশি বাংলায় বলতে গেলে ওরা তো মালোয়ান ছিল। তোমাদের পয়গম্বরও পেগান কালচার ছাড়তে পারেনি, কারণ সে তো তার চল্লিশ বছর বয়স অবধি পেগানই ছিল।’

‘ধর্ম পালন করো, ভালো কথা। সংস্কৃতিটা তোমার নিজস্ব। আরবদের সংস্কৃতি আরবীয়। তোমার সংস্কৃতি ভারতীয়। হিন্দুর দেশে, বহিরাগত মুসলমানদের ধর্ম প্রচারের কারণে তোমার পূর্ব পুরুষ মুসলমান হয়েছে, কিন্তু কালচারটাতো তোমার মাটির, হাজার বছরের পুরোনো। ভাষাটাও তোমার হিন্দু পূর্বপুরুষের। মুরব্বিদের পা ছুঁয়ে যে কদমবুসি করো, সেটা তোমার হিন্দু পূর্বপুরুষের প্রণাম থেকে আসা। একবার তোমার পয়গম্বরের দেশে গিয়ে কাউকে কদমবুসি করে দেখো তো। আল্লাহ ছাড়া অন্য কারও সামনে মাথা নুইয়েছো বলে মুন্ডুটা কেটে নেবে। মনে রাখতে হবে, নিজের সংস্কৃতিকে ঘৃণা করা মানে নিজেকে ঘৃণা করা। নিজের ইতিহাসকে, নিজের জন্মকে অস্বীকার করা মানে নিজেকে অস্বীকার করা।’

‘মঙ্গল শোভাযাত্রা শুরু হয়েছে আমাদের চোখের সামনে, আশির দশকে। কাঠের শোলার কাগজের হাতি ঘোড়া বাঘ বক পাখি পেঁচা বানিয়ে রাস্তায় ঘুরে বেড়ানো চমৎকার একটি দৃশ্য বটে। নাচ গান, হাতি ঘোড়া,ঢাক ঢোল, পিঠে পুলি, ইলিশ টিলিশ ছাড়া আমাদের কালচারে আর আছে কী! সতীদাহ? ও তো নারী নির্যাতন। কীর্তন, মিলাদ? ও তো ধর্ম। ধর্মকে আমি কালচার বলি না। ধর্মকে আমি ‘অলৌকিকে বিশ্বাস’ বলি। কালচারের সংগে লৌকিকতার সম্পর্কই সত্যিকারের সম্পর্ক।’

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »