২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ সন্ধ্যা ৬:৪৭
ব্রেকিং নিউজঃ
বিমানবন্দরে সাফজয়ী কৃষ্ণা রানীর আড়াই লাখ টাকা চুরি ভারতের নতুন হাইকমিশনার প্রণয় কুমার ভার্মা ঢাকায় কপাল পুড়বে ১৪০ এমপির প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে সঙ্গী হলেন যারা কিশোরগঞ্জ ও নরসিংদীতে হিন্দুদের বাড়ি-ঘর ও দোকানপাটে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ। রাঙ্গামাটিতে সুভাষ দাস ও মনি দাস দম্পতিকে গাছের সাথে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় অমানবিক নির্যাতন ড্রাইভিং লাইসেন্সের লিখিত পরীক্ষার স্ট্যান্ডার্ড ৮৫টি প্রশ্ন ব্যাংক ও উত্তর নিজে শিখুন এবং অন্যকে শেখার জন্য উৎসাহিত করুন। আবার ভুমিদস্যুর হাতে আহত সংখ্যালঘু হিন্দু… বাংলাদেশেও অর্থপাচারের অভিযোগ পার্থের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের সম্পর্ক উন্নয়নে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

সরকারকে অবশ্যই আলোচনায় আসতে হবে

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইমঃ বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২, ২০১৭,
  • 373 সংবাদটি পঠিক হয়েছে

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণের জন্য সরকারকে অবশ্যই আলোচনায় আসতে হবে। আলোচনায় না এলে, প্রমাণিত হবে যে জাতির কাছে তাদের কোনো দায়বদ্ধতা নেই।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যৌথসভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, সরকার সমঝোতা করবে না, অতীতেও সমঝোতা করতে চায়নি। সমঝোতা করতে হয়েছে। এই বাংলাদেশের ইতিহাসে এবং দেশ সৃষ্টির আগে সমঝোতার ইতিহাস আছে। আলোচনা ছাড়া এখানে কখনো গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা যাবে না। তিনি বলেন, সমঝোতার কথা নাকচ করার মাধ্যমে আওয়ামী লীগ এটাই বোঝাচ্ছে, তারা সমঝোতা চায় না। তারা যদি গণতন্ত্র চাইত, তাহলে অবিলম্বে বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে আলোচনায় বসে একটি পথ বের করতে পারত।

বিএনপি সংঘাত চায় না উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, বারবার সংঘাতের পরিস্থিতি সৃষ্টি করে বিএনপি জাতিকে বিভ্রান্ত করতে চায় না। সমঝোতা ও আলোচনার মধ্য দিয়ে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের আশা যেন পূরণ হয়, বিএনপি সেটাই চায়। ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য নয়, জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠাই বিএনপির মূল লক্ষ্য। তিনি বলেন, ক্ষমতায় টিকে থাকাই হচ্ছে এই সরকারের একমাত্র উদ্দেশ্য। যেখানে সমগ্র জাতি চাইছে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন হোক, সেখানে সরকার সব প্রস্তাব নাকচ করে দিচ্ছে।

১০ দিনের কর্মসূচি
৭ নভেম্বর ‘জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস’ উপলক্ষে বিএনপি ১০ দিনের কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দিয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ৭ নভেম্বর সকালে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও সারা দেশে দলীয় কার্যালয়ে দলের পতাকা উত্তোলন করা হবে। ওই দিন সকাল ১০টায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা জানাবেন। দিবসটি উপলক্ষে পোস্টার ও ক্রোড়পত্র প্রকাশ করা হবে। সারা দেশে স্থানীয় ‘সুবিধা’ অনুযায়ী আলোচনা সভা ও অন্যান্য কর্মসূচি পালিত হবে।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ ...
© All rights Reserved © 2020
Developed By Engineerbd.net
Engineerbd-Jowfhowo
Translate »